Chatting sex kolkata

Chatting sex kolkata

நான் சில முறை கீழே குனிந்து அவள் புட்டங்களை வெகு அருகில் பார்த்து இருக்கிறேன்.ஒரு நாள் நான் வகுப்புக்கில் உக்கார்ந்திருக்கும் போது, லேசாக‌"சக் சக்" என்று சத்தம் வந்தது.பென்சுக்கு கீழே இருந்து வந்தது மாதிரி இருந்ததால், மெல்ல கீழே குனிந்து பார்த்தேன்,பவித்ரா ஒரு பென்சிலை வைத்து அவள் புண்டையை மெல்ல தேய்த்துக் கொன்டிருந்தாள்.இது கற்பனைகதை இல்லை.ஒவ்வொரு வார்த்தையும் உண்மை.என் பெயர் முத்து. ட்வின் டவர் போல் சற்று கூட சாயாத‌கூர்மையான முலைகள்.அதை துப்பட்டா போட்டு மூட முயற்ச்சி செய்வாள்.பருத்த பின்புறம்.நானும் அவள் பின்னாலேயே போனேன்.அவள்,பாத்ரூமின் உள்ளே மொத்த ஆடைகளையும் அவிழ்த்து அம்மணமாக நின்ராள்.பிறகு, "உன் நாக்க வெச்சு என் கூதி ஆழத்த கண்டுபிடி"என்று சொல்லி நாயை போல, 2 கைகளும் கால்களும்கீழே பதித்து முட்டி போட்டபடி புண்டையை காண்பித்தாள்.நானும் முட்டி போட்டு, அவள் சிதியை நக்க ஆரம்பித்தேன்.அவளோ, "ம்ம்..வேகமா, வேகமா" என்று என்னை உற்சாகப் படுத்தினாள்.அவள் கூதியை இரண்டு கைகளாளும்விரித்து, நாக்கை வைத்து ஆழமாக ஓத்தேன்.எனக்கோ ஆச்சரியம்.பாடம் நடைபெற்றுக் கொண்டிருக்கும் பொழுதே அவள் அப்படிசெய்கிறாளே?

All of them were pretty much just interested in the money or how the experience would look on their college applications, but when I read one application, I was touched.Whether you are looking for a casual and friendly chat or serious relationship and dating, our online free mobile chat rooms will provide you everything.You can join our free chat rooms without registration and you are NOT required to give out your personal details to join the Kolkata Chat Rooms.- মিলুর মা একটু উত্তেজিত গলায় বললেন – তোর অফিসের কাজ কি আর শেষ হয়না ?- -না মা, এখুনি বেরুছি অফিস থেকে। মিটিং চলছিল তাই দেরী হল একটু, সঅঅঅঅরি মাআআ। – আদুরে গলায় বলে মিলু। পঁচিশে পা দেওয়া এমএনসিতে চাকরিরতা জুনিয়র সফটওয়্যার ডেভলপার মিলুর জন্য তার বাড়ি থেকে বেশ কিছুদিন ধরেই সম্বন্ধ দেখা চলছিল তার বিয়ের জন্য। সম্প্রতি একটি পাত্রকে পছন্দ করেছেন বাড়ির গুরুজনরা, ছবি দেখে মিলুও। আজ পাত্রের বাড়ি থেকে দেখতে আসছে মিলুকে। পছন্দ হলে পাকাকথা হবে। চটজলদি বাড়ি পৌঁছাল মিলু, মায়ের চাপা বকাবকি শুনতে শুনতে বাথরুমে ঢুকলো ফ্রেশ হয়ে বিয়ের ইন্টারভিউ দেওয়ার জন্য নিজেকে তৈরি করতে। ইতিমধ্যে পাত্রপক্ষ হাজির হল। পাত্র নিজে, তার বাবা-মা ও ছোটমামা। কথাবার্তা হল দু’পরিবারের মধ্যে। পাত্রের সাথে কথা বলে মিলুরও পছন্দ হল। মিলুর চেয়ে বছর দুয়েকের বড় হবে ছেলেটি। সুন্দর স্বাস্থ্য, হ্যান্ডসাম চেহারা। চাকরিতে খুব তারাতাড়িই উন্নতি করেছে, এখন একটা এমএনসির অ্যাসিসট্যান্ট চিফ প্রোডাকশন ম্যানেজার। খুবই সপ্রতিভ, কথাবার্তায় যথেষ্ট চৌখশ। আরও বড় কথা ছেলেটি মিলুদের কলেজের প্রাক্তন ছাত্র। বড়দের থেকে একটু দূরে বারান্দায় বসে ব্যক্তিগতভাবে ছেলেটির সাথে কথা বলল মিলু, ভাল লাগল তার। ভাবনাচিন্তা করে রাত্রে শোওয়ার আগে মাকে জানিয়ে দিল তার সিদ্ধান্ত। দু’পরিবারের মধ্যে পাকাকথাও হয়ে গেল কয়েকদিন পরে। মাসতিনেক পরে বিয়ের দিন ঠিক হল। বিয়ের আগে দু’একবার রেস্টুরেন্টে, কফিশপে, শপিংমলে ছেলেটিকে মীট করল মিলু, যা আজকালকার দিনে প্রায় সবাই করে। রাত্রে শুতে যাবার আগে কোনকোনও দিন ফোনে রোম্যান্টিক কথাও হতো দুজনের। এতে করে মিলুর ভালবাসা বেড়ে গেল ছেলেটির উপর। তারপর ঠিক লগ্নে শানাইয়ের সুরে, রোশনাই করে শুভকাজ মিটেও গেল আনন্দসহকারে। অদিতি ও অন্য বন্ধুরা ব্যাপক হইহুল্লোর করলো। ফুলশয্যার রাতে দুজনের ঘনিষ্ঠতা হালকাই ছিল কারন দুজনেই ক্লান্ত ছিল সারাদিনের ধকলে। পরের দিনই দু’জনে বেরিয়ে পরলো হনিমুনে, দুজনে দুজনকে একান্তভাবে আবিষ্কার করতে। বিকালে ট্রেন ধরে পরেরদিন সকালে ওরা পৌঁছালো এক ফরেস্টবাংলোতে। দুপুরবেলায় দু’জনেই একটু ঘুমিয়ে নিল যাতে কিনা রাত জাগতে কষ্ট না হয়। মিলু ভিতরে ভিতরে আনন্দিত হয়ে উঠছিল, আজ তাদের ভালবাসার প্রথম রাত। কিন্তু বছর চারেক আগে ঘটে যাওয়া একটা যন্ত্রনামুখর স্মৃতি মনের মধ্যে খোঁচা দিচ্ছিলো মাঝে মাঝে। চারবছর আগে এক রাতে মিলু হারিয়েছিল তার সবচেয়ে মূল্যবান নারীসম্পদ, যা কিনা সে ভালবাসার সাথে তুলে দিতে পারত তার স্পেশাল মানুষটির হাতে। সেই রাতে জ্ঞান ফিরে পেয়ে মিলু নিজেকে আবিষ্কার করেছিল লেডিস-রুমের পিছনদিকে একটা বেঞ্চের পিছনের মেঝেতে। পরনের ব্লাউস ও ব্রা ছিন্নভিন্ন, ছেঁড়া শাড়ীটা কোমর পর্যন্ত গোটানো। সারা দেহে সুঁচ ফোটানোর মত যন্ত্রনা, তীব্রভাবে তলপেটের নিচে ও তার গোপনাঙ্গে যেখান থেকে চুঁইয়ে পড়েছে রক্ত। উরুসন্ধি ও উরুতে রক্ত ও চটচটে তরল জাতীয় কিছু লেগে রয়েছে। বুকের মধ্যে থেকে একটা হাহাকার ভরা কান্না উগরে এসেছিল মিলুর। খুব সম্ভবত লেডিস-রুমের দরজা ভিতর থেকে বন্ধ করে দিয়েছিলো পশুটা। ঘটনাটা ঘটে যাবার পরও খুব সম্ভব কেউ এই রুমে আসেনি বা এলেও বেঞ্চের পিছনে অন্ধকারে আলুথালুভাবে পড়ে থাকা মিলুকে দেখেনি। কোনরকমে উঠে দাঁড়িয়ে পোশাকআশাক ঠিক করে নিয়ে আলো-অন্ধকারে হাতড়ে হাতড়ে নিজের ব্যাগটা খুঁজে বের করেছিলো মিলু। মোবাইলটা বের করে অদিতিকে ফোন করেছিলো। স্টেজের সামনে থেকে দৌড়ে এসেছিল অদিতি, সবকিছু দেখেশুনে সেও কেঁদে ফেলেছিল। কিন্তু নিজেকে সামলে নিয়ে বিধ্যস্ত মিলুকে বের করে এনেছিল লেডিস-রুম থেকে। একটা অটো ডেকে মিলুকে নিয়ে সোজা চলে গেছিল নিজেদের বাড়ি। অদিতির দাদা ডাক্তার, বাড়িতেই ছিল। সংক্ষিপ্তভাবে অদিতি তাকে মিলুর ঘটনাটা বলতেই দাদা দৌড়ে এসেছিল মিলুকে দেখতে। ছোট্ট বোনের প্রিয় বান্ধবীর এই অবস্থা দেখে সেও প্রথমে মাথা ঠিক রাখতে পারেনি। কিন্তু সে ডাক্তার মানুষ, দ্রুত নিজেকে সামলে নিয়ে মিলুর চিকিৎসায় লেগেছিল বাড়ির সবাইয়ের অজ্ঞাতে। দাদাকে সাহায্য করেছিলো বোন। দাদার নির্দেশে অদিতি মিলুর বাড়ি ফোন করে জানিয়েছিল যে আজ রাত্রে মিলু ওদের বাড়ি থাকবে। সারা রাত মিলুর পাশে ছিল অদিতি, মিলুকে সাহায্য করেছিলো ট্রমা থেকে বেরুতে। নিয়ম করে ওষুধ খাইয়েছিল মিলুকে, চোখের জল মুছিয়ে দিয়েছিল ওর। পরদিন দাদা কিছু চেক-আপ করে জরুরী ওষুধ খাইয়ে অদিতির সাথে মিলু কে পাঠিয়ে দিয়েছিল তার নিজের বাড়িতে। না, মিলু কাউকে কিছ্ছু জানতে দ্যায়নি এই বিষয়ে, অদিতি ও ওর দাদা বাদে অন্য কেউ জানেনা মিলুর এই কলঙ্কের কথা। মিলুও প্রতিজ্ঞা করেছিলো মা-বাবা কে তো না-ই, বিয়ে হলে বরকেও কোনদিনও জানতে দেবে না। সে তো কোনদিন প্রমানও করতে পারবে না কে ছিলো সেই পাষন্ড। ঘটনাটা জোর করে মন থেকে সরিয়ে দিয়েছিলো সে এই চার বছরে, ভুলেই গেছিল প্রায়। আজ আবারো মন কে শক্ত করল মিলু। না, অতীত সর্বদাই অতীত। সেই তিক্ত স্মৃতিকে আর ফেরাতে চায় না মিলু। বিকালে বেড়াতে বেরল দু’জনে। একে অপরের হাত ধরে কথা বলতে বলতে নিরিবিলি জঙ্গলের পথে হাঁটছিল ওরা। একটা ঘোরের মধ্যে চলে যাচ্ছিলো মিলু। আজ রাত্রে মিলিত হবার আগাম উত্তেজনায় অল্প ভিজেও গেছিল মিলুর অন্তর্বাস, শক্ত হয়ে উঠেছিল তার স্তনবৃন্ত, কিন্তু অস্বস্তি না বরং ও উপভোগ করছিল এটা। তারাতাড়ি রাতের খাওয়া সেরে নিল দু’জন। মিলুর ভিতরটা ফুরফুর করছিল আনন্দে। এটাও টের পাচ্ছিল ওর পার্টনারও ওকে পাওয়ার জন্য উদগ্রীব, তার হাতের স্পর্শ, উষ্ণতা তাই বুঝিয়ে দিচ্ছিলো মিলুকে। জঙ্গলে রাত আটটা মানে নিঝুম রাত। মশারী খাটিয়ে চোখ বুজে অপেক্ষা করছিল মিলু। নাইটল্যাম্পের আলোয় মায়াবী হয়ে উঠল ঘর। মিলুর শরীর শক্ত হয়ে ঊঠল, সমস্ত দেহমন নিয়ে সে প্রতীক্ষা করতে লাগল তার সঙ্গীর। একসময় সে কপালে অনুভব করল একটা চুম্বন। শিউরে উঠল মিলু। একজোড়া ঠোঁট তার উষ্ণ ঠোঁটকে স্পর্শ করল। সারা দিলো মিলুও। ধীরে ধীরে চুম্বনের মধ্যে দিয়ে দু’জন খুজে নিল দু’জনের জিভ। মিলু চুসতে লাগল ছেলেটির ঠোঁট, ছেলেটিও মিলুর জিভে হাল্কা কামড় দিল। টানটান হয়ে উঠল মিলুর শরীর, স্তনবৃন্ত ও তার গোপনাঙ্গ। হাল্কা ভাবে ভিজে গেল ওর প্যান্টি, নিঃশ্বাস দ্রুত হলো। মিলুর জীবনসঙ্গীর ঠোঁট নামলো ওর গলায়। ছোট ছোট চুমু ও লাভ-বাইটসে ভরিয়ে দিতে লাগলো ওর কান, গলা। হালকা শীৎকার বেরতে শুরু করেছিল মিলুর গলা থেকে, যা পরিনত হল চাপা আর্তনাদে যখন ছেলেটি মিলুর টপ খুলে ফেলে বামস্তন সম্পুর্নভাবে মুখের ভিতর পুরে নিল ও নিজের বাঁ হাত দিয়ে চটকাতে লাগলো মিলুর ডানস্তনকে। ছেলেটির এগিয়ে যাওয়ার পারফরমেন্স দেখে একটা জিনিস মিলু আবছাভাবে বুঝতে পারছিল যে ছেলেটির জীবনে সে প্রথম নয়। অভিজ্ঞতাসম্পন্ন ছেলেটি জানে কিভাবে নারীকে তৈরি করে নিতে হয় নিজের ও সেই নারীর চরম সুখ পাওয়ার জন্য। কিন্তু এসব চিন্তা খুব দ্রুত বেরিয়ে গেল মিলুর মাথা থেকে। মিলুর শরীরজুড়ে তখন ঝরণার প্রবাহ, তার সামনে কি একটা ছোট পাথরের নুড়ি বাধা হয়ে দাঁড়াতে পারে?

Chatting sex kolkata-58Chatting sex kolkata-57Chatting sex kolkata-1

நானும் சரி என்று சொன்னேன்.மாலை வகுப்புகள் முடிந்த்தும், நண்பர்களோடு கதைத்துவிட்டு,இருவர் மட்டும் அங்கேயே உக்கார்ந்திருந்தோம்.

Join our conversation (36 Comments).
Click Here To Leave Your Comment Chatting sex kolkata.

Comments:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *